-->

Breaking




শনিবার, ২৭ মার্চ, ২০২১

ভারতের সংবিধানে বিচার ব্যবস্থার ভূমিকা গুলি কি কি ?- What are the roles of the judiciary in the Constitution of India?

ভারতের সংবিধানে বিচার ব্যবস্থার ভূমিকা গুলি কি কি ?- What are the roles of the judiciary in the Constitution of India?

ভারতের সংবিধানে বিচার ব্যবস্থার ভূমিকা গুলি কি কি ?- What are the roles of the judiciary in the Constitution of India?
ভারতের সংবিধানে বিচার ব্যবস্থার ভূমিকা গুলি কি কি ?- What are the roles of the judiciary in the Constitution of India?


একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের তিনটি প্রধান স্তর  হল সরকার, আইনসভা এবং বিচার বিভাগ। বিচার বিভাগকে প্রশাসন থেকে পৃথক এবং বিচার বিভাগ, ক্ষমতা এক্তিয়ার এবং কর্তৃত্বের পরিপ্রেক্ষিতে আইন ও বিচার বিভাগের সক্রিয়তা : এই দুটি প্রধান লক্ষ্য যা ভারতের বিচার বিভাগকে আকার দিয়েছে। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা সংরক্ষণের প্রচেষ্টা ভারতীয় বিচার বিভাগের গণতন্ত্রে প্রতিফলিত হয়েছে।


ভারতীয় বিচার বিভাগের কাঠামো ও কার্যক্রম সম্পর্কিত বিষয়গুলির মধ্যে রয়েছে 

(ক) মৌলিক অধিকারের রক্ষক হিসেবে বিচার বিভাগের ভূমিকা, 

(খ) বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, 

(গ) বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনা, 

(ঘ) সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারকদের অপসারণ প্রক্রিয়া। এগুলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী লেখা হয়।

ভারতের বিচার বিভাগ একটি অবিচ্ছেদ্য বিচার বিভাগ। অর্থাৎ, সরকারের দুটি শাখা কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্য সরকার বা আইনসভা, দুই ধরনের কেন্দ্রীয় আইনসভা এবং রাজ্য বিধানসভা ভারতীয় বিচার বিভাগের কাঠামোর অনুরূপ, কিন্তু কেন্দ্র ও রাজ্য বিভক্ত নয়। যদিও সুপ্রিম কোর্ট, রাজ্য হাইকোর্ট, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল, জুডিশিয়াল কমিশনার কোর্ট, জেলা আদালত, সেশন জজ কোর্ট, প্রেসিডেন্সি কোর্ট, ইত্যাদি, সুপ্রিম কোর্ট এবং হাইকোর্ট থেকে শুরু করে সকল আদালত একই বিচার বিভাগের বিভিন্ন অংশ।


সুপ্রিম কোর্ট


সংবিধানের ১২৪ (১) অনুচ্ছেদ, সুপ্রিম কোর্ট ভারতীয় বিচার বিভাগের শীর্ষে। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ছাড়াও আরও ৩০ জন বিচারপতি রয়েছেন। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির সংখ্যা নির্ধারণ করার অধিকার সংসদের আছে।


সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি নিয়োগ


১. যখন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি নিযুক্ত হন, রাষ্ট্রপতি সুপ্রিম কোর্ট এবং হাইকোর্টের বিচারকদের সাথে পরামর্শ করেন যদি তিনি উপযুক্ত মনে করেন।


২. রাষ্ট্রপতি সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারপতি নিয়োগের সময় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির পরামর্শ মেনে চলতে বাধ্য।


সুপ্রিম কোর্টের বিচারক হওয়ার জন্য ন্যূনতম যোগ্যতা আবশ্যক


১. একজন ভারতীয় নাগরিক হোন।


২. তাকে অন্তত পাঁচ বছরের জন্য যে কোন উচ্চ আদালতে বিচারক হিসেবে কাজ করতে হবে।


৩. অথবা দশ বছরের জন্য উচ্চ আদালত বা তার বেশি উচ্চ আদালতের উকিল হিসেবে আইন অনুশীলন করা।


৪. অথবা রাষ্ট্রপতির মতে একজন বুদ্ধিমান উপদেষ্টা হওয়া উচিত (ধারা ১২৪(৩)।


সুপ্রিম কোর্টের একজন বিচারকের মেয়াদ ও বেতন


১. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের অবসরের বয়স ৬৫ বছর।


২. অবসর গ্রহণের আগে আপনি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করতে পারেন (সেক্ষেত্রে আপনাকে রাষ্ট্রপতির কাছে পদত্যাগপত্র পাঠাতে হবে) অথবা আপনাকে সংসদ কর্তৃক অপসারণ করা হতে পারে।


অবসরের পর ভারতের কোনও আদালতে আইন অনুশীলন করা যাবে না।


বেতন: 

প্রতি মাসে ২.৮ লাখ রুপি (প্রধান বিচারপতি)। অন্যান্য বিচারকদের বেতন প্রতি মাসে ২.৫ লাখ রুপি হয়।


সংসদের উভয় কক্ষে উপস্থিত দুই-তৃতীয়াংশ ভোট সদস্যের সমর্থনে অসদাচরণ বা প্রমাণিত অযোগ্যতার অভিযোগ পাস হলে রাষ্ট্রপতি একজন বিচারককে অপসারণ করতে পারেন। আজ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের কোন বিচারককে বরখাস্ত করা হয়নি।


অস্থায়ী ভিত্তিতে বিচারক নিয়োগ


অস্থায়ী ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্টে বিচারক নিয়োগ করা হতে পারে। আদালতের অধীনে মামলা পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় বিচারকের সংখ্যার অনুপস্থিতির কারণে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতির সম্মতিক্রমে প্রয়োজনীয় সময়ের জন্য অস্থায়ী বিচারক নিয়োগ করতে পারেন। হাইকোর্টের একজন বিচারক, যিনি সুপ্রিম কোর্টের বিচারক হিসেবে কাজ করার যোগ্য, সুপ্রিম কোর্টের অস্থায়ী বিচারক হিসেবে নিযুক্ত হতে পারেন।


সুপ্রিম কোর্টের কর্মসংস্থা 


ভারতের সুপ্রিম কোর্টের কর্মসংস্থা কে মূলত চার ভাগে ভাগ করা যেতে পারে:


👍 মূল এলাকা:

মূল এলাকায় অনেক মামলা  আছে যা অন্য কোন আদালতে উত্থাপন করা যাবে না, শুধুমাত্র সুপ্রিম কোর্টের প্রধান এলাকায় এবং নিষ্পত্তি করা যেতে পারে। যেমন ১। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে এক বা একাধিক রাজ্যের বিবাদ। 2. এক বা একাধিক রাজ্য সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্বে কেন্দ্রীয় সরকার এবং বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকারের মধ্যে বিবাদ, 3। একদিকে রাজ্য সরকার, অন্যদিকে এক বা একাধিক রাজ্য সরকারের মধ্যে বিবাদ। ৪. রাষ্ট্রপতি বা উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচন নিয়ে কোন বিতর্ক।


👍 আপীল এলাকা


সুপ্রিম কোর্টে চার ধরনের আপীল করা যেতে পারে:


(ক) সংবিধানের ব্যাখ্যার জন্য আপীল -


যদি হাইকোর্ট কোন দেওয়ানি অপরাধী বা অন্য কোন মামলায় সাক্ষ্য দেয় বা আর যদি সুপ্রিম কোর্ট মনে করে যে এই মামলায় সংবিধানের ব্যাখ্যা সংক্রান্ত প্রশ্ন আছে, তাহলে এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টে আপীল করা যেতে পারে। 


(খ) দেওয়ানী আপীল-


একটি দেওয়ানি মামলায়, যদি হাইকোর্ট এই বিষয়ে আইনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের প্রভাবের প্রমাণ দেয়, তাহলে মামলাটি সুপ্রিম কোর্টে আপীল করা যেতে পারে। 


(গ) ফৌজদারি আপীল -


ফৌজদারি মামলায় তিন ধরনের আপীল আছে, অর্থাৎ ১। যখন হাইকোর্ট নিম্ন আদালতে একজন ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়, ২। যদি নিম্ন আদালতে বিচারের সময় হাইকোর্ট একটি মামলা নিজের হাতে নেয় এবং হাইকোর্ট যদি কোন ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। ৩। যদি হাই কোর্ট এই মামলাটির বিষয়ে প্রমানপত্র দেয় যে মামলাটি সুপ্রিম কোর্টে আপিল যোগ্য সেই ক্ষেত্রে  সুপ্রিম কোর্টে আপিল করা যাবে 


(ঘ) বিশেষ অনুমতি নিয়ে আপীল -


বিশেষ পরিস্থিতিতে ভারতের যে কোনও আদালতে ন্যায়বিচার, আদেশ বা শাস্তির বিরুদ্ধে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা এবং আপীল করার জন্য সুপ্রিম কোর্ট (সামরিক আদালত ও ট্রাইবুনালে) বিশেষ অনুমতি দিতে পারে।

ভারত সমন্ধে এবং আরো বিভিন্ন বিষয়ের ইম্পর্টেন্ট নোটস পেতে অনুগ্রহ করে আমাদের টেলিগ্রাম গ্রুপ জয়েন করবেন |


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন